অর্পণ ফাউন্ডেশন এর অতীত বর্তমান এবং ভবিষ্যত

“অর্পণ ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ” একটি স্বেচ্ছাসেবী অলাভজনক সমাজসেবামূলক সংগঠন। দেশের উন্নয়ন, মানুষের সচেতনতা সৃষ্টি ও বিভিন্নমুখী সেবামূলক কাজ করার লক্ষ্যে এ সংগঠনটির জন্ম। যার প্রতিষ্ঠাতা স্বেচ্ছাসেবক “ইমন চৌধুরী”, “মুজাহিদ রায়হান” এবং”মাহমুদ নোমান”। ইমন, নোমান এবং রায়হানের হাত ধরে এ সংগঠনটির জন্ম।

৮ই নভেম্বর ২০১৫ তারিখে “অর্পণ ব্লাড ফাউন্ডেশন” নামকরণের মাধ্যমে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনটির কার্যক্রম প্রথমে অনলাইনে শুরু হয়। পরে তা নানামুখী কার্যক্রমের লক্ষ্য নিয়ে “অর্পণ ফাউন্ডেশন” নামে কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্য স্থির করে।
উল্লেখ্য যে, অর্পণ নামের অর্থ “দান করা” অথবা “বিলিয়ে দেয়া”। নিজেদের মানুষের সেবায় বিলিয়ে দেয়ার ব্রত এবং একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে এ সংগঠনটি কাজ শুরু করে।
যার মূল প্রতিপাদ্য :
“রক্তে অর্জিত বাংলার মাটি, মানব সেবায় করবো খাঁটি”

# অর্পণ ফাউন্ডেশন এর বিগত কর্মসূচী :
* ৪ ডিসেম্বর ২০১৫ তে ঢাকার মহাখালীতে প্রথম একটি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পের মাধমে মাঠ পর্যায়ের কাজ শুরু করে সংগঠনটি।

* ১লা জানুয়ারি ২০১৬ বছরের প্রথম দিন ঢাকার দক্ষিণ বাড্ডায় “জাগরণী সংসদ” এ আরেকটি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্প পরিচালনা করা হয়।

* ৯ জানুয়ারি ২০১৬ তে নারায়ণগঞ্জ এর তারাবো তে, ম্যাক্স সুয়েটার ফ্যাক্টরীতে ১৮০০+ পোশাক শ্রমিকের ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং।

* ১৭ জানুয়ারি ২০১৬ তে ম্যাক্স সুয়েটার ফ্যাক্টরীতে দ্বিতীয় ধাপে আরো ৫০০+ পোশাক শ্রমিকের ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং।

* ২৮ জানুয়ারি ২০১৬ ঢাকার উত্তরার “মাদ্রাসাতুত তারাবিয়াহ” তে ৭০+ শিক্ষার্থীর
ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং।

* ২০-৩০ জানুয়ারির মধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে ২৫০ পিছ শীতবস্ত্র বিতরণ।

* ৩০ জানুয়ারি ২০১৬ পথশিশু পুনর্বাসন কেন্দ্র “অপরাজেয় বাংলাদেশ” এ ৩১২+ শিশুর ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ও ৮০পিছ শীতবস্ত্র বিতরণ।

* ৫-৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ ঢাকার ধানমন্ডিতে নজরুল ইনস্টিটিউট এ “ফিজিওনিউজ২৪.কম পাঠক উৎসব” এ ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্প ও সচেতনতামূলক ভিডিওচিত্র প্রদর্শন।

* ১১ই ফেব্রুয়ারি অর্পণ এর কুড়িগ্রাম শাখার উদ্যোগে “মন্ডল হাট, বটতলা বাজার, উলিপুর, কুড়িগ্রাম” এ ৫০০+ সাধারণ মানুষের ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং।

* ২৪শে মার্চ ২০১৬ গাজিপুরের টঙ্গীতে “আহসানিয়া হাফেজিয়া মাদ্রাসা” তে ৮০+ শিক্ষার্থীর ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং।

* ২৬শে মার্চ উপলক্ষ্যে রক্তদান সম্পর্কিত সচেতনতামূলক কুইজ প্রতিযোগিতা। এবং ৭জনকে বিজয়ী ঘোষণা করে পুরষ্কার হিসেবে ক্রেস্ট বিতরণের কর্মসূচী গ্রহণ।

* অফলাইন ছাড়াও সকলের সুবিধার জন্য অনলাইনের মাধ্যমে সদস্য নিবন্ধন প্রক্রিয়া চালুকরণ।
ফরম পৃূরণের লিংক- https://goo.gl/rYInBQ

* বর্তমানে (০১ লা জুন ২০১৬ পর্যন্ত) ৩০০+ রেজিস্টার্ড সদস্য, ১০০০+ ব্লাড ডোনার ডাটা, ১৭,৫০০+ ফেইসবুক ফ্যান এবং ৫২,০০০+ ফেইসবুক গ্রুপ মেম্বার।

* নিয়মিত অনলাইন এবং অফলাইনে জরুরী মুহুর্তে রোগিদের রক্তদাতা খুজে দেয়া এবং শতাধিক মানুষকে রক্তদান করানো এবং উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।

* ৩-৪ জুন গাজিপুরের ব্লাড ফাইটার্স কর্তৃক আয়োজিত স্বেচ্ছাসেবীদের মিলনমেলা ও বুনিয়াদী প্রশিক্ষণ কর্মশালায় বিশেষ সম্মাননা স্বারক প্রাপ্তি। এবং দেশজুড়ে ব্যাপক প্রশংসা ও পরিচিতি।

* অনলাইন এবং অফলাইনে বিভিন্ন সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা।

আলহামদুলিল্লাহ। অল্প কিছিদিনের মধ্যে এ সংগঠনটি ব্যাপক উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে হাজারো মানুষের দোয়া ও সন্তুষ্টি অর্জন করতে পেরেছে।
এজন্য সৃষ্টিকর্তার কাছে আমরা কৃতজ্ঞ।

#অর্পণ_ফাউন্ডেশন এর লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যসমূহ :

১. দেশের সকল মানুষের মঝে বিনামূল্যে স্বেচ্ছায় রক্তদান সম্পর্কিত সচেতনতা সৃষ্টি।
২. রক্তদানের বিভিন্ন উপকারিতা এবং প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে সকলকে সঠিক তথ্য প্রদান।
৩. দেশের বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, উপজেলা, থানা এবং জেলায় “বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় কর্মসূচী” বা “ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্প” পরিচালনা করা।
৪. প্রত্যেকটি জেলার স্বেচ্ছাসেবকদের নিয়ে জেলা পর্যায়ে একটি করে স্বেচ্ছাসেবক টিম তৈরি করা, যার মাধ্যমে নিজ নিজ জেলার মানুষের জরুরী রক্তের প্রয়োজনে সে জেলার স্বেচ্ছাসেবকেরা রক্তদাতা ম্যানেজ করে দিতে পারে।
৫. বিভিন্ন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক দিবস পালন করা। যেমন : বিশ্ব রক্তদাতা দিবস, জাতীয় রক্তদাতা দিবস ইত্যাদি।
৬. নিজস্ব ল্যাব স্থাপন করে স্বেচ্ছায় দানকৃত নিরাপদ রক্ত সংগ্রহ করে তা বিনামূল্যে মুমুর্ষ রোগীদের কাছে পৌছে দেয়া।
৭. স্বল্প খরচে নিজস্ব ল্যাবে রক্তের বিভিন্ন প্রকার পরীক্ষা করা।
৮. পথশিশু, দরিদ্র. শীতার্ত ও বিভিন্ন প্রকার প্রাকৃতিক দুর্যোগে মানুষের পাশে দাঁড়ানো এবং বিভিন্ন ধরণের সহায়তা প্রদান।
৯. দুস্থ, গরীব, এতিম শিশুদের জন্য শেল্টার হোম অথবা আশ্রয়কেন্দ্র স্থাপন এবং তাদের লেখাপড়ার ব্যবস্থা করা।
১০. গরীব অসুস্থ মানুষ, যারা অর্থের অভাবে চিকিৎসা করাতে পারে না, তাদের জন্য আর্থিক সহায়তা প্রদান করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা।
১১. সর্বোপরি দেশের সকলের জন্য বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা।

রক্তে অর্জিত বাংলার মাটি, মানবসেবায় করবো খাঁটি।
রক্ত দিন, জীবন বাঁচান।

অর্পণ ফাউন্ডেশন এর অতীত বর্তমান এবং ভবিষ্যত

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *